ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

রামনাথ: দলিত থেকে রাষ্ট্রপতি

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০১৭ শুক্রবার, ০১:০৫ পিএম
রামনাথ: দলিত থেকে রাষ্ট্রপতি

জন্মেছিলেন উত্তর প্রদেশের এক দারিদ্রপীড়িত গ্রামের দলিত পরিবারে। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক জীবনে বিহারের গভর্নর হয়েছিলেন। অবশেষে দলিত সম্প্রদায় থেকে হয়ে উঠলেন বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি। তিনি রামনাথ কোবিন্দ, ভারতের ১৪ তম রাষ্ট্রপতি।

দলিত সম্প্রদায় থেকে উঠে আসা রামনাথ কোবিন্দ শুধুমাত্র রাষ্ট্রপতিই হননি, দেশটির সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি পরির্বতনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। কৃষকের ছেলে রাম নাথ কোবিন্দকে বেছে নেওয়ার পেছেনে তাঁর অতি সাধারণ জীবন যাপনের কথাই জানায় বিজেপি।

নির্বাচনে জয়ী হয়ে রামনাথ কোবিন্দ সবার উদ্দেশ্যে বলেছেন, দেশের আনাচে কানাচে যেসব দরিদ্র মানুষ কোনো রকমে জীবন যাপন করছেন রাষ্ট্রপতি হিসেবে তিনি তাঁদের সবার প্রতিনিধিত্ব করবেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ভোটের ফলে বিরোধী জোটের মীরা কুমারকে বিপুল ভোটে হারিয়ে জয়ী হন তিনি। রের্কড গড়া ৯৯ শতাংশ ভোট পড়েছে এবার, যার কোবিন্দই পেয়েছেন ৬৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ ভোট। আর মীরা কুমার পেয়েছেন ৩৪ দশমিক ৩৫ শতাংশ ভোট। নির্বাচনে রামনাথের জয় একরকম নিশ্চিতই ছিল তবে দুজনের মধ্যে ভোটের ব্যবধানটা কত হয় সেটাই আলোচনায় ছিল বেশি। পার্লামেন্ট ভবনের পাশাপাশি ২৯টি রাজ্যের বিধানসভা এবং দুটি ইউনিয়ন টেরিটোরিসহ মোট ৩২টি কেন্দ্রে সোমবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হয়।

নতুন রাষ্ট্রপতি কোবিন্দকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী।

তবে দলিত সম্প্রদায়ের রামনাথের চলার পথটা এত সহজ ছিল না। ১৯৪৫ সালে উত্তরপ্রদেশের কানপুরের দেহাত জেলায় জন্মগ্রহণ করেন রামনাথ কোবিন্দ। আর ভারতের উত্তরপ্রদেশেই দলিত মানুষেরা বেশি নির্যাতিত।

কানপুর বিশ্ববিদ্যালায় থেকে তিনি বাণিজ্য ও আইন বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৯৪ সালের এপ্রিলে এই দলিত নেতা উত্তরপ্রদেশ থেকে রাজ্যসভার সদস্য হন। ২০০৬ সালের আগে পযন্ত ২ মেয়াদে ১২ বছর ওই দায়িত্ব পালন করেন।

পেশায় আইনজীবী রামনাথ ১৯৭৭ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত দিল্লি হাইকোর্টে কেন্দ্রীয় সরকারের আইনজীবী ছিলেন। ১৯৮০ থেকে ৯৩ সাল পর্যন্ত তিনি সুপ্রিম কোর্টের স্টান্ডিং কাউন্সিলে ছিলেন। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেশাইয়ের ব্যক্তিগত সহকারীও ছিলেন কোবিন্দ।

১৯৯১ সালে বিজেপির মাধ্যমে রাজনীতিতে আসা রামনাথ ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত দলটির দলিত মোর্চার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। ১৯৯৪ সালে উত্তর প্রদেশে রাজ্য সভার সদস্যও হন কোবিন্দ। ২০১৫ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি তাঁকে বিহারের গভর্নর নিযুক্ত করেন। আগামী ২৫ জুলাই রামনাথ কোবিন্দ রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেবেন।

ব্যক্তিগতভাবে সাধাসিধে জীবনযাপন করা রামনাথ কোবিন্দ অনেকটাই প্রচারবিমুখ। তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে দুর্নীতি কিংবা সাম্প্রদায়িক আচরণের কোনো অভিযোগ নেই। বরং নির্যাতিতদের হয়ে মামলা লড়েছেন অনেক। দীর্ঘদিন পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির জন্য কাজ করেছেন। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে যে সাম্প্রদায়িকতা আর তৃণমূল জনগোষ্ঠির কাছে না পৌছানের একটা অভিযোগ ছিল সেটি কতটুকু ঘোচাতে পারবেন নতুন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সেটাই এখন দেখার বিষয়।

বাংলা ইনসাইডার/এএন/টিআর