ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

আ.লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু

মাহমুদুল আলম
প্রকাশিত: ১৫ জুলাই ২০১৭ শনিবার, ১০:২৮ এএম
আ.লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু

জাতীয় সংসদের অধিবেশন শেষ হওয়ার পরদিন গতকাল শুক্রবার থেকেই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু হয়েছে। জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন আঙ্গিকে এই সফরের পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সফরের অংশ হিসেবে সংসদ সদস্য ও মনোনয়ন প্রত্যাশীদেরকে নিজ নিজ এলাকা সফর করতে বলা হয়েছে। বিশেষ করে, যত বেশি সংখ্যক সম্ভব দলীয় সংসদ সদস্যকে যার যার এলাকায় গিয়ে জুমার নামাজ পড়তে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কারণ জুমার নামাজ ঢাকায় পড়ার চেয়ে এলাকায় গিয়ে পড়লে সাধারণ মানুষের খোঁজ-খবর বেশি নেয়া যাবে। তবে যারা ওই সময়সীমার মধ্যে এলাকায় পৌঁছাতে পারেননি, তাঁদের বেশিরভাগই এরই মাঝে এলাকায় পৌঁছে গেছেন বলে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। 

তাছাড়া দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বেশ কয়েকটি এলাকা সফর করবেন। এমনকি দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ২-৩টি এলাকা সফর করবেন বলে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রীর সফরগুলো চলতি মাসেই সম্পন্ন হবে বলে জানা গেছে। তবে দলীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কোন কোন এলাকা সফর করবেন, তা পরে নির্ধারণ করা হবে। 

কেন্দ্র থেকে দেয়া নির্দেশনায় ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। 

সংসদ সদস্যদের প্রতি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বাজেট অধিবেশনের কারণে ঈদের পরপরই তাঁদেরকে ঢাকায় চলে আসতে হয়েছে। একই কারণে ঈদের খুব বেশি আগে তাঁরা এলাকায় যেতে পারেননি। যে কারণে ইফতার ও ঈদ রাজনীতিকে তাঁরা সর্বোচ্চ পরিমাণ কাজে লাগাতে পারেননি। বর্তমানে তা পুষিয়ে নিতে হবে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, সংসদ সদস্যদেরকে প্রত্যেকটি এলাকায় যেতে হবে। বিশেষ করে বন্যাদূর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলা হয়েছে। এই কাজে ছাত্রলীগ ও যুবলীগসহ অঙ্গসংগঠনগুলোকে নিয়োজিত করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে কেন্দ্র থেকে।

বন্যাদূর্গত এলাকার কার্যক্রমের কৌশল নির্ধারণের পরামর্শও দেয়া হয়েছে এতে। পরামর্শ দিয়ে বলা হয়েছে, এতে অঞ্চলভিত্তিক কৌশল নিতে হবে। যেমন: উজান অঞ্চলে বন্যার পানি আগে কমতে থাকবে। সেখানে এ সময় চর্মরোগসহ অন্যান্য রোগব্যাধী দেখা দিতে পারে। তাছাড়া বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোসহ পূনর্গঠনমূলক বিভিন্ন কাজে হাত লাগাতে হবে।

আর দেশের মধ্যাঞ্চল ও ভাটি অঞ্চলে উজানের পানির চাপ বাড়তে থাকবে বলে এসব এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশংকা রয়েছে এ সময়। তাই এসব এলাকায় শুকনো খাবার, পানীয় জল, প্রয়োজনীয় ঔষধ সরবরাহসহ আনুষাঙ্গিক কাজে হাত লাগাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যতটা সম্ভব স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে যেতে সাধারণ মানুষকে সহযোগীতা করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বাংলা ইনসাইডার/এমএএম