ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

ব্যাটিং বিপর্যয়ে লঙ্কানরা

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ জুলাই ২০১৭ শনিবার, ০৬:৩৬ পিএম
ব্যাটিং বিপর্যয়ে লঙ্কানরা

দলীয় ৩৮ রানে দ্বিতীয় উইকেট খুইয়ে তখন চাপে জিম্বাবুয়ে। ব্যাট হাতে ক্রিজে গিয়েই আরেক সতীর্থ খেলোয়াড়কে সাজঘরে ফিরতে দেখেন ক্রেইগ আরভিন। দিনের প্রথম ঘণ্টার খেলা শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩৮/৩-এ। তবে পরের গল্পটা আরভিনময়। তিনি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডের পর টেস্টেও ব্যাট হাতে লড়াই দেখালেন ক্রেইগ আরভিন।

কলম্বোয় গতকাল চার নম্বরে ব্যাট হাতে দিনশেষে  ১৫১ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। এতে ৩৪৪/৮ সংগ্রহ নিয়ে দিনের খেলা শেষ করে জিম্বাবুয়ে।
কলম্বোর সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। শুরুটা খারাপ ছিল না। ৭.২ ওভারে স্কোর বোর্ডে ২৩ রান জমা করেন দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও রিগেস চাকাভা।

কিন্তু পরের পাঁচ ওভারে ১৫ রানে তিন উইকেট খোয়ায় সফরকারীরা। ১২.৪ তম ওভারে দলীয় ৩৮ রানে তৃতীয় উইকেট খোয়ায় জিম্বাবুয়ে। একে একে সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার  রেগিস চাকাভা, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও ওয়ানডাউন ব্যাটসম্যান তারিসাই মুসাকান্দা।

অল্পতে উইকেট খোয়ান জিম্বাবুয়ের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান শন উইলিয়ামসও। এতে ২০.৫ তম ওভার শেষে ৭০/৪ সংগ্রহ নিয়ে চাপ বাড়ে জিম্বাবুয়ে শিবিরে। তবে পঞ্চম উইকেট জুটিতে প্রতিরোধ দেখান ক্রেইগ আরভিন ও সিকান্দার রাজা। আরভিন-রাজা জুটি স্কোর বোর্ডে জমা করে ৮৪ রান।

তবে রাজা ও পিটার মুরের বিদায়ে ফের শঙ্কা জাগে জিম্বাবুয়ে শিবিরে। প্রথমদিনের  চা বিরতির আগে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৯৫/৬-এ। তবে এবার লঙ্কানদের হতাশার কারণ হয় জিম্বাবুয়ের টেইল এন্ড। আট নম্বরে ব্যাট হাতে ৩৬ রান করেন ম্যালকম ওয়ালার। পরে ক্রেমার করেন ৯ রান। আর দিনশেষে ২৪ রানে অপরাজিত থাকেন জিম্বাবুয়ের ১০ নম্বর ব্যাটসম্যান ত্রিপানো। সপ্তম ও নবম উইকেটে জিম্বাবুয়ের স্কোর বোর্ডে জমা পড়ে যথাক্রমে ৬৫ ও ৬২ রান।

এর আগে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ৩-২ ব্যবধানে জয় কুড়ায় জিম্বাবুয়ে। চতুর্থ ওয়ানডেতে ক্রেইগ আরভিনের ম্যাচজয়ী ৬৯ রানের ইনিংসে ভর করে সিরিজে সমতায় ফেরে সফরকারীরা। গতকাল ইনিংসের শুরুর ৬১ বলে মাত্র দুটি চার হাঁকান ক্রেইগ আরভিন। ২১৩/৬ সংগ্রহ নিয়ে চা বিরতিতে যায় জিম্বাবুয়ে।

এ সময় আরভিন অপরাজিত ছিলেন ৮৪ রানে।  দিনশেষে ২৩৮ বলে ১৫১ রানের ইনিংসে আরভিন হাঁকান ১৩টি চার ও একটি ছক্কা। ১২ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে ৩২ বছর বয়সী ক্রেইগ আরভিনের এটি দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। টেস্টে প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি গত আগস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজ মাটিতে। বুলাওয়েতে ওই ম্যাচে ১৪৬ রানের ইনিংস খেলেন আরভিন।

দ্বিতীয় দিনে বেশি দূর আর এগুতে পারেননি আরভিন। ১৬০ রানেই থেমে যেতে হয় তাকে। তিনি আউট হবার পর তার দল জিম্বাবুয়েও বেশি দূর আগাতে পারেনি। অল্প কিছু রান যোগ করে ৩৫৬ রানেই শেষ হয় জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংস।

শ্রীলঙ্কা নিজেদের প্রথম ইনিংসের শুরুটা বেশ ভালোই করেছিল। প্রথম উইকেট জুটিতে ৮৪ রান যোগ করেন থারাঙ্গা এবং করুণারত্নে। এরপর ১০০ রান পার হতেই আরও ২ উইকেট হারিয়ে বসে লংকানরা। সেখান থেকে ম্যাথুস ডিকভেলাকে সঙ্গে নিয়ে ভালোই সামলায়। তাদের এ জুটি দলকে ২১২ রান পর্যন্ত নিয়ে যায়। এরপর আর কেউই ক্রিজে বেশি সময় টিকতে পারেননি। দিলরুয়ান পেরেরা, দানুসকা গুনারত্নে বা হেরাথদের কেউই দলের জন্য বেশি কিছু করতে পারেননি।

গ্রায়েম ক্রিমার, এমপফু, শন উইলিয়ামসদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং এ দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২৯৩/৭। কাল ৩ উইকেট হাতে নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করবে শ্রীলঙ্কা। এখন তারা প্রথম ইনিংস সামনে কতটা লম্বা করতে পারে সেটাই এই টেস্টে তাদের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেবে।  

শ্রীলঙ্কা
-জিম্বাবুয়ে একমাত্র টেস্ট, দ্বিতীয় দিন শেষে
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
জিম্বাবুয়ে ১ম ইনিংস: ৩৫৬। ৯৪.৪ ওভারে।
ব্যাটিং (আরভিন ১৫১*, রাজা ৩৬, ওয়ালার ৩৬, হেরাথ ৪/১০৬, গুনারত্নে ২/২৮)।

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস : ২৯৩/৭। ৮৩ ওভার।

ব্যাটিং ( থারাঙ্গা ৭১, চান্দিমাল ৫৫, ম্যাথুস ৪১, ক্রিমার ৩/১৮০, এমপফু ১/৩৮, শন উইলিয়ামস ১/৩৪)

বাংলা ইনসাইডার/এনআই